দি দ্যা ভিঞ্চি কোড – ড্যান ব্রাউন

দি দ্যা ভিঞ্চি কোড – ড্যান ব্রাউন

রিভিও লিখেছেন অনিক আহমেদ

|| বই রিভিও ||


বইয়ের নাম: দি দ্যা ভিঞ্চি কোড (The Da Vinci Code)
লেখক: ড্যান ব্রাউন
বাংলা অনুবাদক: মো: নাজিম উদ্দিন
সিরিজ: রবার্ট ল্যান্ডন
জেনার: ইতিহাস, রহস্য, ডিটেকটিভ, থ্রিলার উপন্যাস
প্রথম প্রকাশ: এপ্রিল ২০০৩
মূল ভাষা: ইংরেজী
মূল প্লট
প্যারিসের লুভর মিউজিয়ামে আত্নহত্যা করলেন বিখ্যাত কিউরেটর জ্যাক সনিয়ে। তার মৃতদেহে পাওয়া গেল অদ্ভুত সব চিহ্ন। পুলিশদের তদন্তে সহায়তার জন্য ডাকা হল সিম্বলিষ্ট রবার্ট ল্যাংন্ডকে।
ল্যান্ডন আবিস্কার করল সনিয়ের গায়ের অদ্ভুত চিহ্নগুলো হারিয়ে যাওয়া প্রাচীন এক ভ্রাতৃসংঘের। এমন একটি সংঘ যা যিশুখ্রিস্টের জন্মের সময় থেকে চার্চ আর ধর্মকে রক্ষা করে আসছে শয়তান আর অন্যায়ের হাত থেকে। ল্যাংডনের মনে প্রশ্ন জাগল তাহলে হারিয়ে যাওয়া সংঘটি এখনও জীবিত আছে? তাদের উদ্দেশ্যই বা কি?
মিউজিয়ামে ল্যান্ডন পরিচিত হয় সোফি নামের এক রহস্যময়ীর সাথে যে তাকে একটি ধাধা সম্পর্কে বলে যেটি রেখে গিয়েছিল জ্যাক সনিয়ে। ধাধার সমাধানের সময় রবার্ট জানতে পারে জ্যাক সনিয়ে সোফির দাদা।
ধীরে ধীরে রবার্ট তার তদন্তে এগিয়ে যায়। তার সঙ্গি হয় সোফি। ঘটনাক্রমে পুলিশ তাদের জ্যাকের হত্যাকারী বলে সন্দেহ করে। ক্যাপ্টেন বেজু ফসেকে দায়িত্ব দেয়া হয় তাদের গ্রেফতার করতে। অপর দিকে এক ভয়ংকর খুনি সাইলাস তাদের পিছু নেয়।
রবার্টের বুদ্ধিদিপ্ত চিন্তা, ইতিহাসের ঘটনা, বিজ্ঞান আর ন্যায়ের পথ ধরে এগিয়ে যায় দি দ্যা ভিঞ্চি কোডের গল্প। লেখক ড্যান ব্রাউন এই উপন্যাসে হলি গ্রেইলের রহস্য উন্মোচন করেছেন। তিনি যিশুখ্রিষ্টের রহস্যময় ইতিহাসকে পাঠকের সামনে তুলে আনেন। এছাড়াও আমাদের প্রতিদিনের জীবনে জড়িয়ে থাকা নানান সংকেতের রহস্য ভেদ করেন প্রতি পাতায়।
ড্যান ব্রাউনের সৃষ্ট বিখ্যাত চরিত্র রবার্ট ল্যাংডন সিরিজের এটি দ্বিতীয় উপন্যাস। শুরু থেকেই ল্যাংডন শুধু একটি কাল্পনিক চরিত্রই নয় বরং যেন পাঠকদের বাস্তব সঙ্গি হিসেবে বেশি পরিচিত। সাহসী, ন্যায়বান আর বুদ্ধিদীপ্তির কারনে রবার্টকে সারা বিশ্বের থ্রিলার প্রেমীরা আপন করে নিয়েছে।


2 comments

খুব শ্রীঘ্রই আমাদের সাইটের একটি ব্যাপক পরিবর্তন আানতে যাচ্ছি। আশাকরি আমাদের সাথেই থাকবেন


EmoticonEmoticon